লবণহ্রদে সি-ফুডের সুনামি

495
manashi
মানসী সাহা

সি-বিচে বসে সি-ফুড খাওয়ার মজাই আলাদা। কিন্ত ‘কপালে নাইকো ঘি টকটকালে হবে কি…???’ আজ এই কাজ তো কাল সেই মিটিং। আর ছুটির দিনে আলিস্যি। গতানুগতিক ছকে বেঁধে রয়েছে আজ আমাদের জীবন। তাই টাকা থাকলেও সময়ের অভাবে সি-বিচে বসে সি-ফুড খাওয়ার স্বপ্ন এখন দূরস্থ। কিন্তু আপনি জানেন কী? শহর কলকতায় বসে আপনি এখন পেতে পারেন সমুদ্রের আমেজ। না না! সি-ফুডের রেস্তোরা তো এখন কলকাতার প্রায় গলির মুখেই গঁজিয়ে উঠেছে। তাহলে? কথা হচ্ছে অ্যাটমসফিয়ারের! ধরুণ আপনি প্লেটে খাবার তুলে নিচ্ছেন নৌকার খোল থেকে। আর আপনার চোখের সামনে ঝাঁকে ঝাঁকে ঘুরে বেড়াচ্ছে সামুদ্রিক সব মাছ আর আপনি সেখানে বসে খাবার খাচ্ছেন। কি নিশ্চই ইচ্ছা করছে এমন পরিবেশে যেতে? তো সমস্যা কোথায় চলে যান। না, আর হেয়ালি করছি না। এই সবই আপনি পেতে পারেন ‘ওশ্যান গ্রিল-সি ফুড রেঁস্তোরায়।

 ‘ওসান গ্রিল’, ফার্স্ট ফ্লোর, ইনফিনিটি বেঞ্চমার্ক, সেক্টর ফাইভ, সল্টলেক কলকাতা:৭০০০৯১।

mocktailআর পাঁচটা রেস্তোরাঁ থেকে সম্পূর্ন আলাদা একেবারে অভিনব সজ্জায়, নতুন চিন্তাভাবনায় তৈরি ‘ওশ্যান গ্রিল’। যেখানে সি-ফুডের পাশাপাশি রয়েছে এ দেশ ও দেশের নানান খাবার। ফ্রাঞ্চ থেকে থাই, চাইনিজ থেকে অস্ট্রিলিয়ান, সিঙ্গাপুরী থেকে মালয়েশিয়ান এককথায় ওয়ার্ল্ড ক্যুইজিনের স্বাদ নিয়ে হাজির এই রেঁস্তোরা। তাই এই বৃষ্টির মরশুমে সঙ্গিনীটিকে নিয়ে রোম্যান্টিক ডিনার বা ঘরে বসে বসে যদি হাঁপিয়ে ওঠেন ভোলবদলের জন্য বন্ধু-বান্ধব মিলে ঠিকানা হতেই পারে সেক্টর ফাইভের ‘ওসান গ্রিল’

বুফে লাঞ্চ- দুপুর ১২ টা থেকে সাড়ে ৩টে পর্যন্ত। ডিনার: সন্ধ্যে ৭ টা থেকে রাত সাড়ে ১১টা। এছাড়ে বুফে না চাইলে দুপুর ১২ টা থেকে রাত ১১: ৩০ টা পর্যন্ত খোল রয়েছে এই রেঁস্তোরার দোয়ার আপনার জন্য।

oceangrill2৬ হাজার বর্গফুটের এই রেস্তোরাঁর দেওয়াল জুড়ে রয়েছে কোথাও ফাইবারের তৈরি হাঙর তো কোথাও নানা রঙের মাছ আবার কোথাও জলবন্দি কাঁকড়া। যা সব এড়িয়ে নজর কাড়বে আপনার। তবে অভিনবত্ব ছিনিয়ে নিয়েছে কাঠের নৌকার টেবিলটি। যেখানে করা হয়েছে বুফের ব্যবস্থা। কাঁচের দেওয়াল ঘেরা এই রেস্তোরাঁর একপাশে রয়েছে ফোর লেভের গ্লাসের ৩০ টি আসন বেষ্টিত সম্পূর্ণ আলাদা একটি লউঞ্জ। অন্যপাশে ৬০-৭০ জনের বসার ডাইনিং এরিয়া। তবে আলাদা বলতে রয়েছে প্রতিটি টেবিলে সিগ্রি গিলের ব্যবস্থা। এছাড়া চমক আরও আছে। ‘ওসান গ্রিল’ শুধু রেস্তোরাঁ নয়, এখানে রয়েছে বিভারেজ এরিয়াও। সুতরাং ওয়ার্ল্ড ক্যুইজিনের সঙ্গে আপনি পাবেন অমৃত সুধাও, একই ছাদের তলায়।

বুফে- এক এক দিন খাবারের তালিকায় রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন দেশের মেনু তাই নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাবে না। তবে সবথেকে কম ৫০০ (একজন) টাকা। এছাড়া আইটেম অনুযায়ী রয়েছে খাবারের মূল্য। যদিও টাকাটা একটু বেশি কিন্তু পরিবরশ ও পরিবেশনা এককথায় অসাধারণ।